Chunati Barta



শতাব্দীর সূর্যসন্তান মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন |

"কুল্লু নাফসিন জাইকাতিল মউত" বিধাতার এই অমোঘ নিয়মেই আমাদেরকে পরকালীন অনন্তকালের উদ্দেশ্যে পাড়ি দিতে হবে। মহান আল্লাহই ভালো জানেন তাঁর বান্দাদেরকে কিভাবে উঠিয়ে নেবেন। চুনতির ইতিহাসে কয়েক শতাব্দী শ্রেষ্ঠ সন্তান মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন বীর বিক্রম প্রকাশ বাচ্চু মিয়া অকালেই দুরারোগ্য ব্যাধির সাথে মোকাবেলা করে "শহীদি" মৃত্যুর নিশানা দিয়ে গেছেন। হে আল্লাহ তুমি তাঁকে তার দেশমাতৃকার প্রতি অনবদ্য অবদানের প্রতিদান হিসেবে "জান্নাতুল ফেরদৌস" নসিব করো , আমীন। যদিও পূর্ণাঙ্গ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সামরিক বাহিনীর বিশেষ তত্ত্বাবধানে তাঁকে বীরত্বপূর্ণ ও আড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাংলার অনন্য গ্রাম চুনতিতে সমাধিস্থ করা হয়েছে কিন্তু তৃপ্তি পাইনি কয়েকটি কারণে: # অতি অল্প বয়সেই অসময়ে তিনি আমাদের ছেড়ে গেছেন #: তাঁর দুটি কন্যা সন্তান ও পরিবারের একমাত্র ছেলের পরবর্তী প্রজন্ম তথা হাতের লাঠি নাতি নাতনীদের সাথে সময় কাটানোর সুযোগ পাননি # উনার ব্যক্তিগত অভিপ্রায় ছিল অবসরকালীন সময়ে প্রিয় চুনতিতে সদ্য নির্মিত বাড়ির খোলা ছাদে অমাবস্যা রাত ও চাঁদনী রাত উপভোগ করবেন কিন্তু শুধুমাত্র 4 জুলাই 2019 ক্ষণিকের জন্য এই প্রাসাদে এসেছিলেন # দৃঢ় প্রত্যাশা ছিল ব্যক্তিগত জায়গা জমিতে পর্যটন শিল্পের ছোঁয়ায় অতিথি পাখির কলরব ও সাধারণ মানুষের হৃদয় নিংড়ানো জমায়েত দেখবেন # প্রিয় চুনতি কে সমৃদ্ধ করার জন্য ইতোমধ্যে যে অবকাঠামো করেছেন তার সুবিধা নিশ্চিত এর জন্য স্বপ্ন দেখেছিলেন একটি কারিগরি শিক্ষার পল্লী গঠন করবেন পাশাপাশি ভিত্তিস্থাপন কৃত হাসপাতাল ও ফায়ার ব্রিগেড কার্যক্রম স্বচক্ষে দেখবেন # যদিও প্রাথমিক অবস্থায় রাজি ছিলেন না কিন্তু জয়নুল আবেদীন বীর বিক্রম উচ্চ বিদ্যালয় ও মেহেরুন্নেসা উচ্চ বিদ্যালয় অবহেলিত অঞ্চলে যেমনি প্রাণ সঞ্চার করেছে তেমনি এর বাস্তব সুবিধা এলাকার লোকজন ভোগ করছেন কিন্তু এ দুটি প্রতিষ্ঠান সত্যিকার অর্থে যে মানে পৌঁছানো স্বপ্ন ছিল তা যেন থমকে দাঁড়ালো # চুনতির আগামী প্রজন্মের জন্য একজন জীবন্ত কিংবদন্তি হিসেবে অন্তত আর দশটি বছর তাঁর হায়াত থাকলে এলাকায় প্রতিভাবান সন্তানেরা অনুপ্রেরণা পেত। আল্লাহই ভাল জানেন তাঁর একজন বান্দাকে সর্বোচ্চ কতদিন পর্যন্ত মানুষের সেবা করার সুযোগ দেবেন তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি বাচ্চু চাচার মাঝে পেয়েছিলাম অভিভাবকত্ব , শিখেছিলাম ইংরেজি অনুপ্রেরণা এবং নিজেকে প্রচারবিমুখ রাখার অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে। আমার ব্যক্তিগত জীবনে তিনজন অভিভাবকদের মধ্যে খুঁজে পেয়েছি অন্ত্যমিল; * আমার পিতা আলহাজ্ব মাওলানা ওবায়দুর রহমান আবেদ পীর তরিকতে মুজাদ্দেদীয়া * আমার মামা আলহাজ্ব মুহিব্বুল্লাহ দীর্ঘদিন কাতার প্রবাসে ছিলেন এবং * আমার চাচা আলহাজ্ব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন বীর বিক্রম পিএসসি ,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। পরম শ্রদ্ধেয় এই তিনজন বাংলা ,আরবি, ইংরেজি ও উর্দু ভাষায় পারদর্শী ছিলেন এছাড়া বাচ্চু চাচার আরো কয়েকটি ভাষায় পাণ্ডিত্য ছিল। @ পঞ্চম শ্রেণি থেকে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পর্যন্ত আমি আমার পিতার সান্নিধ্যে চট্টগ্রাম শহরে 1979 সাল থেকে বসবাস করছি। আমার বাবার সাথে প্রায়শ:ই ইংরেজিতে চিরকূট লেখালেখির মাধ্যমে নিত্যনৈমিত্তিক কার্যাদি সম্পন্ন হতো। @ মুহিব্বুল্লাহ মামা যতদিন পর্যন্ত প্রবাসী ছিলেন তাঁর সাথে আমার পত্র যোগাযোগ হতো ইংরেজিতে, তিনি পত্রপাঠ সংশোধনপূর্বক নাম্বারিং করে আমাকে আবার ফেরত পাঠাতেন। @ প্রিয় চুনতি ভাইবার গ্রুপে যে কজন ব্যক্তি অনুজদেরকে ইংরেজি শেখায় অনুপ্রাণিত করেছেন তাঁদের মধ্যে বাচ্চু চাচা, মাসুদ খান চাচা, দুলাল চাচা, ফারুক মামা, হাফিজ ভাই, নিয়াজ ভাই অনন্য। বিশেষত বাচ্চু চাচা যে কয়দিন লিখেছেন তা কিছু কিছু chunati.com স্থায়ীভাবে সংরক্ষিত আছে, সত্যি ই এক মহানায়ক তাঁর প্রিয় গ্রাম চুনতির প্রতি কতটুকু অনুরক্ত , কতটুকু ধ্যানমগ্ন ছিলেন তা তাঁর লেখনীতে ভেসে উঠতো। ভাইবার চালু হওয়ার আগে বিভিন্ন সময়ে উনার ব্যক্তিগত নাম্বারে এসএমএস পাঠালে উনি তৎক্ষণাৎ রেসপন্স করতেন । এত ব্যস্ততার মাঝেও উনার সংক্ষিপ্ত লেখায় আমি আনন্দিত , উপকৃত ও অভিভূত হতাম, পরবর্তীতে ভাইবার সংযুক্ত হলে উনাকে লিখতে আরো স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি এবং বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রেক্ষাপটে উনি প্রতিউত্তর লিখতেন সাবলীল ইংরেজিতে । দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমার মোবাইল সেট হারিয়ে যাওয়ায় স্বর্ণোজ্জ্বল সে সমস্ত লেখা সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়নি। চুনতির বর্তমান প্রজন্মের যারা ভাইবার এর সংযুক্ত আমরা প্রত্যেকে বাচ্চু চাচার কাছে ঋণী। মেহেরুন্নেসা স্কুলের বার্ষিকী "রত্নগর্ভা" সম্পাদনা কালীন তাঁকে পেয়েছি বাংলার শব্দ সম্ভার ও বাক্য অলঙ্করণে অনন্য প্রতিভা হিসেবে। একবার দুবার তিন বার প্রুফ দেখার পরও যতবারই উনার কাছে স্নেহভাজন ছোট ভাই হালিম নিয়ে গেছে পাতা উল্টালেই ভুলভ্রান্তি উদঘাটন করেছেন, এ যেন সাহিত্য সম্ভার এর অনন্য আরেক প্রতিভা ‌। আর স্মৃতিশক্তি তাতো কম্পিউটারের চেয়েও বেশি ! প্রথমবার রত্নগর্ভা ডামী বইয়ে কয়েকজন লেখক এর পৃষ্ঠা সংযোজিত ছিলনা, চূড়ান্ত ডামী অনুমোদনের জন্য উনার কাছে নিয়ে গেলে কয়েক পৃষ্ঠা উল্টানোর পর হতবাক করে দিয়ে বলেন "এই লেখাগুলো কোত্থেকে আসছে ? আগে তো ছিলো না ! " উনার মেধা ও স্মৃতিশক্তিকে ফাঁকি দেয়া দুষ্কর । আর কটা বছর তাঁকে যদি আমাদের মাঝে পেতাম , না জানি তিনি আমাদেরকে তাঁর প্রতিভার আরো কত ঝলকানি দেখিয়ে বিমোহিত করতেন। উনার সমসাময়িক বন্ধুজন ও অতীব নিকটাত্মীয়রা নিশ্চয়ই আরো অনেক ভালো স্মৃতি রোমন্থন করতে পারবেন। প্রত্যাশাও কামনা আমরা সবকিছু এক জায়গায় সংকলন করে স্থায়ী সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে সক্ষম হব। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন। চাচার পরিবারবর্গ ও শুভানুধ্যায়ীদের কাছে একান্ত আবেদন : ৳ বীর বিক্রম জয়নুল আবেদীন উচ্চ বিদ্যালয় ও মেহেরুন্নেসা উচ্চ বিদ্যালয়ের জন্য সরকারের এমপিওভুক্তি এবং অর্থনৈতিক ভিত্তি মজবুত পূর্বক এই দুটি প্রতিষ্ঠানকে শিক্ষা বিস্তার ও সম্প্রসারণে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীত করার জন্য মনোযোগ দিবেন ৳ উনার সপ্ন বিলাস পারিবারিক সম্পত্তির উন্নয়ন ও পরিবর্ধনের মাধ্যমে পর্যটন শিল্প প্রতিষ্ঠা পূর্বক স্থানীয় ও জাতীয় পর্যায়ে সাধারণ মানুষের জন্য পরিসেবার সুযোগ সৃষ্টি করে দেবেন। ৳ চুনতি সমিতি ঢাকা প্রতি বৎসর স্থানীয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান পূর্বক অনন্য নজির স্থাপন করেছেন তাতে জেনারেল আবেদীন নামে শিক্ষা সহায়তা তহবিল চালু করা ৳ chunati.com প্রতিবছর শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করে থাকে এই মহতী উদ্যোগে জেনারেল জয়নূল আবেদীনের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য এগিয়ে আসার অনুরোধ ৳ উনার ব্যক্তিগত উদ্যোগে যে সমস্ত উন্নয়নমূলক সরকারি কর্মকাণ্ড প্রক্রিয়াধীন রয়েছে তা বাস্তবায়নে সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের সাথে সমন্বয় পূর্বক দ্রুত সমাধান করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন। ৳ সময়ের প্রয়োজনে আরো অন্যান্য বিষয়াদি এলাকার সামাজিক ও দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের সমন্বয়ে মেজর জেনারেল আবেদীন এর অবদানের স্বীকৃতি আদায়ের ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। গতকাল চুনতিতে ক্ষণিক সময়ের জন্য চাচির (জিনা ফুফু) স্মিত হাসি মনকে প্রবোধ দিয়েছে নিশ্চয়ই উনি প্রয়াত স্বামীর অবদানে সিক্ত চুনতির আদ্যোপান্ত ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা অনুভব করেছেন। সেই সাথে ছোট বোন ফাবিহার সাবলীল ও প্রাঞ্জল উপস্থিতি আমাকে মুগ্ধ করেছে। আল্লাহ আপনাদের পরিবারের প্রতি দয়া ও সার্বিক নিরাপত্তা দিন। আসুন, প্রিয় চুনতি বাসি আমার দৃষ্টিতে বিগত কয়েক শতাব্দীর একমাত্র সূর্যসন্তান মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন বীর বিক্রম চুনতির বুকে শেষ সমাধিতে এসে এটিই প্রমাণ করেছেন তিনি একমাত্র মাতৃভূমি চুনতির ছিলেন আছেন এবং থাকবেন। হে আল্লাহ পরওয়ারদিগার তুমি চুনতির (www.chunati.com) মানুষদের মধ্যে সোহার্দ্য সম্প্রীতি ও আত্মার বন্ধন চির অটুট রাখো। সুম্মা আমীন From Facebook post of Mr. Zahedur Rahman.

Comments

Leave a Replay

Make sure you enter the(*)required information